Tag Archives: salate mubasshir

সলাতে মুবাশ্‌শির (পর্ব ৪২)

রচনায় : আব্দুল হামীদ ফাইযী তাশাহহুদের পর নামায ২ রাকআত বিশিষ্ট (যেমন ফজর, জুমুআহ, ঈদ প্রভৃতি) হলে দুআ মাসূরার পর সালাম ফিরলে নামায শেষ হয়ে যায়। কিন্তু ৩ বা ৪ রাকআত বিশিষ্ট (মাগরিব, এশা, যোহ্‌র, আসর, ইত্যাদি) হলে তাশাহহুদ পড়ে তৃতীয় রাকআতের জন্য উঠে যেতে হবে। ইবনে মাসঊদ (রাঃ) বলেন, ‘—অতঃপর নামাযের মাঝে হলে নবী (সাঃ) তাশাহহুদ পাঠ করে উঠে ... Read More »

সলাতে মুবাশ্‌শির (পর্ব ৪১)

রচনায় : আব্দুল হামীদ ফাইযী দুআ-এ মাসূরাহ্‌ নবী মুবাশ্‌শির (সাঃ) নামাযে বহু প্রকার দুআ (প্রার্থনা) করতেন। এক এক সময়ে এক এক প্রকার দুআ তিনি পাঠ করে আল্লাহর নিকট প্রার্থনা করতেন। সাহাবাগণকে ‘তাহিয়্যাত’ শিখানোর পর বলেছিলেন, “এরপর তোমাদের মধ্যে যার যা ইচ্ছা ও পছন্দ সেই দুআ বেছে নিয়ে দুআ করা উচিত।” (বুখারী ৮৩৫, মুসলিম,  মিশকাত ৯০৯নং) অবশ্য সেই দুআ অপেক্ষা আর ... Read More »

সলাতে মুবাশ্‌শির (পর্ব ৪০)

রচনায় : আব্দুল হামীদ ফাইযী দুআ মাসূরার পূর্বে দরুদের গুরুত্ব মহানবী (সাঃ) এক ব্যক্তিকে তার নামাযে দুআ করতে শুনলেন, লোকটি মহান আল্লাহর গৌরব বর্ণনা করল না, আর তাঁর নবীর উপর দরুদও পড়ল না। তিনি বললেন, “এ তো তাড়াতাড়ি করল।” অতঃপর তাকে ডেকে সকলের উদ্দেশ্যে বললেন, “যখন তোমাদের মধ্যে কেউনামায পড়বে, তখন সে যেন তার প্রতিপালকের প্রশংসা বর্ণনার মাধ্যমে আরম্ভ করে। ... Read More »

সলাতে মুবাশ্‌শির (পর্ব ৩৯)

রচনায় : আব্দুল হামীদ ফাইযী দরুদ তাশাহহুদের পর নবী মুবাশ্‌শির (সাঃ) নিজের উপর দরুদ পাঠ করতেন। (আহমাদ, মুসনাদ ৫/৩৭৪, হাকেম, মুস্তাদরাক) আর উম্মতের জন্যও তাঁর উপরের সালামের পর দরুদ পড়াকে বিধিবদ্ধ করেছেন। মহান আল্লাহর সাধারণ আদেশ রয়েছে, “— হে ঈমানদারগণ! তোমরাও নবীর উপর দরুদ পাঠ কর এবং উত্তমরুপে সালাম পেশ কর।” (কুরআন মাজীদ ৩৩/৫৬) আর মহানবী (সাঃ) বলেন, “যে ব্যক্তি ... Read More »

সলাতে মুবাশ্‌শির (পর্ব ৩৮)

 রচনায় : আব্দুল হামীদ ফাইযী তাশাহহুদের গুরুত্ব নবী মুবাশ্‌শির (সাঃ) প্রত্যেক দুই রাকআতে ‘তাহিয়্যাহ্‌’ (তাশাহহুদ) পাঠ করতেন। (মুসলিম, সহীহ ৪৯৮, আহমাদ, মুসনাদ) বৈঠকের শুরুতেই তিনি বলতেন, “আত্‌ তাহিয়্যা-তু লিল্লা-হি—।” (বায়হাকী, সিফাতু স্বালাতিন নাবী (সাঃ), আলবানী ১৬০পৃ:) দুই রাকআত পড়ে ‘তাশাহহুদ’ পাঠ করতে ভুলে গেলে তিনি তার জন্য ভুলের সিজদাহ করতেন। (বুখারী, মুসলিম,  ইরওয়াউল গালীল, আলবানী ৩৩৮ নং) তিনি তাশাহহুদ পড়তে ... Read More »

সলাতে মুবাশ্‌শির (পর্ব ৩৭)

রচনায় : আব্দুল হামীদ ফাইযী তাশাহহুদের বৈঠক দ্বিতীয় রাকআতের সকল কর্ম (শেষ সিজদাহ) শেষ করে মহানবী (সাঃ) দুই সিজদার মাঝের বৈঠকের মত বাম পা বিছিয়ে তার উপর বসে যেতেন এবং ডান পায়ের পাতাকে খাড়া করে রাখতেন। (বুখারী, আবূদাঊদ, সুনান ৭৩১নং) তাশাহহুদের জন্য বসতে আদেশ দিয়ে নামায ভুলকারী সাহাবীকে তিনি বলেছেন, “— অতঃপর তুমি যখন নামাযের মাঝে বসবে, তখন স্থির হবে ... Read More »

সলাতে মুবাশ্‌শির (পর্ব ৩৬)

রচনায় : আব্দুল হামীদ ফাইযী দ্বিতীয় সিজদাহ অতঃপর ‘আল্লাহু আকবার’ বলে তকবীর দিয়ে তিনি দ্বিতীয় সিজদাহ করতেন। এ বিষয়ে তিনি নামায ভুলকারী সাহাবীকে আদেশ দিয়েও বলেছিলেন, “— অতঃপর তুমি ‘আল্লাহু আকবার’ বলবে। অতঃপর এমন সিজদাহ করবে, যাতে তোমার সমস্ত হাড়ের জোড়গুলো (নিজের জায়গায়) স্থির হয়ে যায়।” (আবূদাঊদ, সুনান ৮৫৭ নং,হাকেম, মুস্তাদরাক) এই তকবীরের সাথেও তিনি কখনো কখনোহাত তুলতেন। (আহমাদ, মুসনাদ, ... Read More »

সলাতে মুবাশ্‌শির (পর্ব ৩৫)

রচনায় : আব্দুল হামীদ ফাইযী সিজদাহ থেকে মাথা তোলা অতঃপর (সিজদার পর) নবী মুবাশ্‌শির (সাঃ) ‘আল্লাহু আকবার’ বলে তকবীর দিয়ে সিজদাহ থেকে মাথা তুলতেন। এ ব্যাপারে তিনি নামায ভুলকারী সাহাবীকে আদেশ করে বলেছেন, “কোন ব্যক্তির নামায ততক্ষণ পর্যন্ত সম্পূর্ণ হবে না, যতক্ষণ পর্যন্ত না — সিজদাহ করেছে ও তাতে তার সমস্তহাড়ের জোড় স্থির হয়েছে। অতঃপর ‘আল্লাহু আকবার’ বলে মাথা তুলে ... Read More »

সলাতে মুবাশ্‌শির (পর্ব ৩৪)

রচনায় : আব্দুল হামীদ ফাইযী সিজদার মাহাত্ম মা’দান বিন আবী তালহা হতে বর্ণিত তিনি বলেন, আল্লাহর  রসূলের স্বা ধী নকৃত (মুক্ত) দাস সওবান (রাঃ) এর সাথে সাক্ষাৎ করে বললাম,  আমাকে এমন একটি আমলের কথা বলে দিন যা করলে আমি জান্নাত প্রবেশ করতে পারব, (অথবা বললেন, আমি বললাম, আল্লাহর নিকট সর্বাপেক্ষা প্রিয় আমলের কথা বলে দিন।) কিন্তু উত্তর না দিয়ে তিনি ... Read More »

সলাতে মুবাশ্‌শির (পর্ব ৩৩)

রচনায় : আব্দুল হামীদ ফাইযী সিজদার যিক্‌র ও দুআ সিজদায় গিয়ে মহানবী (সাঃ) এক এক সময়ে এক এক রকম দুআ পাঠ করতেন। তাঁর বিভিন্ন দুআ নিম্নরুপ:- سُبْحَانَ رَبِّىَ الأَعْلى। (সুবহা-না রাব্বিয়্যাল আ’লা) অর্থ- আমি আমার মহান প্রভুর সপ্রশংস পবিত্রতা ঘোষণা করি। ৩ বার বা ততোধিক বার। (আবূদাঊদ, সুনান ৮৮৫নং, দারাক্বুত্বনী, সুনান, ত্বাহা, বাযযার, ত্বাবারানী)  سُبْحَانَ رَبِّىَ الأَعْلى وَ بِحَمْدِهِ। উচ্চারণ:-  ... Read More »