কেমন আছেন রাশিয়ান মুসলমান?

কমিউনিজম যদিও আজ এক বিস্মৃত মতবাদের নাম, তবুও সেই মতবাদপুষ্ট লোকজন এখনও সোভিয়েত সংলগ্ন এলাকাগুলোতে নানা অজুহাতে অব্যাহত রেখেছে মুসলমানদের ওপর নির্যাতন ও বৈষম্যমূলক কর্মকান্ড

রুশ মুসলমানরা বেড়ে ওঠে এক গুমোট পরিবেশে। ইসলামের শাশ্বত বিধান পরিপালন করতে বাধ্য হন বিজাতীয় মিশ্র সংস্কৃতিতে। তার মধ্যে সংখ্যাগরিষ্ঠ খ্রিস্টান ধর্মের প্রভাবই সবচেয়ে বেশি। বর্তমানে রাশিয়ার উল্লেখযোগ্য সংখ্যক মুসলিম চেচনিয়া ও দাগেস্তানে বসবাস করেন।

তারপরও মুসলিমরা স্বকীয় মূল্যবোধ ও বিশ্বাস আগলে রাখার চেষ্টা করে যাচ্ছেন। কারণ, ইসলাম মানবতার ধর্ম, যা মানুষকে ক্ষমা করতে শেখায়। কোনোরূপ চরমপন্থা ও অন্যায় হত্যা-কে ইসলাম সমর্থন করে না। কিন্তু ইসলাম ও মুসলমানের বিরুদ্ধে ঢালাওভাবে মিথ্যাচার ও জুলুম, অত্যাচার অব্যাহত রেখেছে দেশটি। পৃথিবীর অন্যান্য ‘উদার’ দেশের মতো রাশিয়াতেও ইসলামের পক্ষে বললে সাম্প্রদায়িক। আর বিপক্ষে বললে তিনি সমাদৃত হন মুক্তমনা হিসেবে।

কমিউনিজম যদিও আজ এক বিস্মৃত মতবাদের নাম, তবুও সেই মতবাদপুষ্ট লোকজন এখনও সোভিয়েত সংলগ্ন এলাকাগুলোতে নানা অজুহাতে অব্যাহত রেখেছে মুসলমানদের ওপর নির্যাতন ও বৈষম্যমূলক কর্মকান্ড। এমন অনেক রাষ্ট্র যেগুলো পরবর্তী সময়ে কমিউনিস্ট রাশিয়ার কবল থেকে স্বাধীনতা লাভ করেছে, সেসব রাষ্ট্রে এখনও কমিউনিজমের ভূত তাড়া করে ফেরে।

রাশিয়া সংলগ্ন এসব রাষ্ট্রে রাশিয়া পুনরায় নিজের দখল পাকাপোক্ত করার চক্রান্ত করে আসছে অনেক দিন ধরেই। এ কারণে আন্তর্জাতিকভাবে এসব রাষ্ট্রকে ব্যর্থ করতে নানা তৎপরতা চালাচ্ছে তারা। এই চক্রান্তের পথ ধরেই ককেশাস এবং উত্তর-পূর্ব ইউরোপজুড়ে নীরবে নিভৃতে চলছে মুসলিম নিধন এবং অত্যাচার। সেই কমিউনিজম প্রতিষ্ঠার পর থেকেই যার শুরুটা হয়েছিল।

রাশিয়ায় ইসলামের আগমনের ইতিহাস হাতড়ালে আমরা দেখতে পাই সামরিক বিজয়ের পথে সেখানে ইসলাম যায়নি। সেখানে ইসলাম প্রচারের সূচনাটা হয় ব্যবসা ও মুসলমানের সঙ্গে রাশিয়ানদের মেলামেশার পথ ধরে। বর্তমান রাশিয়ার সীমান্তবর্তী অনেক এলাকা মুসলিম বাহিনীর অভিযানে ইসলাম বিজয়ী হলেও তার প্রভাব রাশিয়ার মূল ভূখন্ডে পড়েনি। কারণ, আবহমানকাল থেকেই মধ্য এশিয়ার জাতিগুলো স্বাধীনভাবে বসবাস করে আসছে।

তবে হ্যাঁ, রুশ ফেডারেশনের অন্তর্ভুক্ত অল্প সংখ্যক মুসলিম দেশ যেমন চেচনিয়া এবং সোভিয়েত রাশিয়ার কাছে আত্মসমর্পণকারী মুসলিম দেশ যেমন তাজিকিস্তান রুশদের মাঝে ইসলাম প্রচারে অল্প-বিস্তর ভূমিকা পালন করেছে।

কিন্তু রুশ কর্তৃপক্ষ তা সহজে মেনে নিতে পারেনি। রাশিয়াতে ১৯৩১ সালে মসজিদ ছিল ২৬ হাজার ২৭৯টি, সে রাশিয়াতেই সোভিয়েত ইউনিয়নের রাষ্ট্রীয় সংবাদপত্র Soviet Warnews-এর ভাষ্য অনুযায়ী, মুসল্লিদের জন্য উন্মুক্ত মসজিদ ছিল মাত্র ১ হাজার ৩১২টি। ১৯৬৪ সালে ফরাসি ভাষায় তাশখন্দ সম্পর্কিত একটি বুলেটিন প্রকাশিত হয়।

এতে বলা হয়, কাজাখস্তানসহ গোটা মধ্য-এশিয়ায় মসজিদের সংখ্যা মাত্র ২৫০টি। বলশেভিক বিপ্লবের পদতলে ৬০ থেকে ৬৫ মিলিয়ন (৬ কোটি বা ৬ কোটি ৫০ লাখ) মুসলমান প্রাণ হারায়। এই মুসলমানরা পৃথিবীর যে ভূখ-জুড়ে ছড়িয়ে ছিল, তার আয়তন প্রায় ১৫ মিলিয়ন বর্গমাইল (আফ্রিকা মহাদেশের আয়তনের চেয়েও বেশি)।

শুধু তাই নয়, ইসলামবৈরিতা ও মুসলিমবিদ্বেষের নিকৃষ্ট দৃষ্টান্ত তারা স্থাপন করে আলেম-ওলামা নিধনেও। ১৯১৭ সালে (বোখারা ও খিভা ব্যতীত) আলেম-ওলামা ৪৫ হাজার ৩৩৯ জনের কম ছিলেন না। কিন্তু ১৯৫৫ সালে তাদের সংখ্যা দাঁড়ায় ৮ হাজার ৫২ জনে। কারণ ৩০’র দশকে অধিকাংশ আলেম-ওলামাকে হত্যা করা হয়েছিল। ধর্ম পরিপালনে এখন কিছুটা ছাড় থাকলেও তখন এ দ্বার ছিল একেবারেই রুদ্ধ। জাকাত প্রদান ছিল নিষিদ্ধ। হজ করাও ছিল অসম্ভব। ১৯৪৫ সালের পর হজের অনুমতি দেয়া হয়।

কিন্তু ১৯৪৫ সাল পর্যন্ত, এমনকি ১৯৭৭ সাল পর্যন্ত হজ পালনকারী ব্যক্তির সংখ্যা ১০০’র বেশি ছিল না। আর রমজান মাসের রোজা রাষ্ট্রীয়ভাবে নিষিদ্ধ না হলেও কার্যত নিষিদ্ধ ছিল। রোজা রাখা ছিল অসম্ভব। অবশেষে কয়েকজন মুফতি মুসলমানদের এই ফতোয়া দিতে বাধ্য হন, তারা যেন তিন দিন রোজা রাখে, যাতে তিন দিন ৩০ দিনের স্থলাভিষিক্ত হয়। এই তিন দিন হলো রমজানের ১ম, ১৫তম এবং ৩০তম দিন। (আল মুসলিমুনা ফিল ইত্তিহাদিস সুফিয়াতি : ২৭৬)।

পক্ষান্তরে আল্লাহ চান মানুষে মানুষে ভালোবাসার মাধ্যমে পৃথিবীকে সুন্দরভাবে আবাদ করতে। কেননা, এর আগে জিনেরা এ পৃথিবীতে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে ও এখানে রক্তগঙ্গা বইয়ে দেয়।

পরে তাদের হটিয়ে আল্লাহ আদম (আ.) কে পাঠান এবং পৃথিবী পরিচালনার জন্য যুগে যুগে নবীদের মাধ্যমে বিধানগুলো পাঠিয়ে দেন। (সূরা বাকারা : ৩০, ৩৯)।

#দেশে_দেশে_ইসলাম
#দেশে_দেশে_ইসলাম_ও_মুসলিম

About মুহাইমিনুর রহমান

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Solve : *
15 × 27 =