Category: ডাউনলোড

বই : সহীহ মাসনুন ওযীফা

ইসলামী শারীআহর অন্যতম লক্ষ্য হচ্ছে তাযকিয়া বা আত্মশুদ্ধি। রাসূল (সা) ও তার সাহাবীগণ ফরয ইবাদাতের পাশাপাশি নফল ইবাদাত পালনে রত থাকতেন। সহীহ হাদীসের ভিত্তিতে এসকল নফল ইবাদাত ও যিকরকে আমাদের সমাজে “ওযীফা” বলে পরিচিত। আমাদের বর্তমান বাজারে বিভিন্ন তরীকার বিভিন্ন রকম ওযীফা বিদ্যমান। কিন্তু সহীহ হাদীসের ভিত্তিতে মাসনূন বা সুন্নাতি ওযীফার বই পাওয়া যায় না। আগ্রহী মুসলিমরা যেন অল্প পরিশ্রম ও সময়ে সহীহ সুন্নাতি ওযীফাগুলি পালন করে বেশী সাওয়াব, বরকত  পেতে পারে সেজন্য এই ওযীফাগুলো সংকলন করেছেন ড. খোন্দকার আবদুল্লাহ জাহাঙ্গীর।

বইটি প্রকাশ করেছে আস-সুন্নাহ পাবলিকেশন্স।  (more…)

More

আদাবুয যিফাফ বা বাসর রাতের আদর্শ

আমাদের বর্তমান মুসলিম সমাজ সবক্ষেত্রেই অমুসলিমদের অনুসরণ করার পাশাপাশি  কিছু ক্ষেত্রে অনুকরণও করছে। তাদের কৃষ্টি, কালচার, সংস্কৃতি, অপসংস্কৃতি গ্রহণ করছে। কোনরুপ যাচাই বাছাই না করেই তারা গড্ডালিকা প্রবাহে মিয়ে যাচ্ছে। বিশেষ করে সংস্কৃতির ক্ষেত্রে আজ মুসলিমরা অসহায়। তারা যেনো ইসলামী সংস্কৃতিকে ভুল বিজাতীয় অপসংস্কৃতিকেই সংস্কৃতি ভাবছি। এগুলোর অনুসরণ করছে। যত সব অপসংস্কৃতির এই প্রবাহ তার অন্যতম হলো আচার-অনুষ্ঠানকেন্দ্রিক।

এরকম বিবাহের মতো এই পবিত্র কাজকেও আমরা আজ অনুষ্ঠাননির্ভর করে ফেলেছি। এর সাথে যা করছি তা পুরোটাই হিন্দুয়ানী এবং পশ্চিমা সংস্কৃতি। যার পুরোটাই অনৈসলামিক। বিবাহের মতো এই পবিত্র বিধান সম্পর্কে বিস্তারিত জানাতে এবং অপসংস্কৃতিকে তুলে ধরতে শাইখ নাসিরুদ্দীন আলবানী (রহ)-এর আদাবুয যিফাফ বা বাসর রাতের আদর্শ বইটি  অনন্য। এ বইয়ে তিনি সংস্কৃতির হক বাতিলের পার্থক্য তুলে ধরেছেন, যাতে উম্মাতে মুহাম্মাদী নিজস্ব সংস্কৃতিতে চলে আল্লাহর সান্নিধ্য অর্জন করতে পারে। শাইক এই বই রচনায় তত্ত্ববহুল গভীর পান্ডিত্যের পরিচয় দিয়েছেন। এ কারণে জাতি তাঁর নিকট চিরকতজ্ঞ। বিশেষত: তিনি পুস্তকটিতে মহিলাদের স্বর্ণ ব্যবহার সম্পর্কে একটি  অধ্যায় রচনা করেছেন। বিষয়টি তত্ত্ববহুলে বটে কিন্তু এটি তাঁল একটি স্বতন্ত্র গবেষণা ও তাঁর ব্যতিক্রমধর্মী ভুমিকা। বিষয়টি সঠিক হলে তিনি দ্বিগুন সাওয়াবের অধিকারী হবেন এবং ভুল হলেও একগুণ সওয়াবের অধিকারী হবেন। (more…)

More

হাদীস সংকলনের ইতিহাস

ইসলামী জীবন বিধান তত্ত্ব ও তথ্যগতভাবে দুইটি মৌল বুনিয়াদের উপর স্থাপিত। একটি পবিত্র কুরআন ও অপরটি রাসূলের হাদীস। পবিত্র কুরআন ইসলামের একটি মৌলকাঠামো উপস্থাপন করেছে আর রাসূলের হাদীস সেই কাঠামোর উপর একটি পূর্ণাঙ্গ ইমারত গড়ে তুলেছে। তাই ইসলামী জীবন বিধানে রাসুলের হাদীসের গুরুত্ব অপরিসীম।

ইলমে হাদীসেই ইসলামী জীবনবিধানের বিস্তৃত রুপরেখার প্রতিফলন ঘটেছে। এই কারণে কুরআনের শিক্ষা, মর্ম, উপলব্ধি এবং সেই অনুসারে ব্যক্তি, পরিবার ও সমাজ গঠনের জন্য হাদীসের বিকল্প আর নেই। প্রকৃত মুসলিম রুপে জীবন যাপন করতে এবং সর্বতোভাবে দায়িত্ব পালন করতে হাদীসের ব্যাপকতর অধ্যয়ন এবং ইহার বিশুদ্ধতা ও প্রমাণিকতা সম্পর্কে পর্যাপ্ত জ্ঞানর্জন করা একান্তই আবশ্যক। হাদীস সম্পর্কে জ্ঞানার্জন না করা প্রকৃতপক্ষে ইসলাম সম্পর্কে অজ্ঞ থাকারই নামান্তর।

দু:খের বিষয় যে, মুসলিমদের জীবনকে রাসূল (সা)-এর জীবন ও কর্মধারা থেকে বিচ্ছিন্ ন করা এবং ইসলামকে একটি নিষ্প্রাণ ও স্থবির ধর্মে পরিণত করার লক্ষ্যে হাদীসের প্রামাণিকতা এবং বিশুদ্ধতা এবং ইহার সংকলন ও সংরক্ষণ সম্পর্কে একটি সন্দেহের ধূম্রজাল সৃষ্টির অপচেষ্টা চলে আসছে সুদীর্ঘকাল হতে।  প্রকৃত পক্ষে ইসলামের সোনালী যুগের অবাসানের পর মু’তাজিলা সম্প্রদায়ের উত্থানের মধ্য দিয়েই এই অপচেষ্টা শুরু হয়েছে। পরবর্তীকালে ‘আহলে কুরআন তথা কুরআনপন্থী”র মুখোশ পরে হাদীস-অবিশ্বাসীদের একটি গোষ্ঠী বিভিন্ন সময়ে মুসলিমদের মধ্যে সুকৌশলে বিভ্রান্তি সৃষ্টির এই হীন প্রয়াস চালাচ্ছে। (more…)

More

তাফসীরে তাবারী ৯ম খন্ড

তাফসীর গ্রন্থ হলো মূলত মহান আল্লাহর তরফ হতে রাসূল (সা)-এর উপর নাযিলকৃত আল-কুরআনের আল-হাদীসের মাধ্যমে ব্যাখ্যা-বিশ্লেষণ। সাধারণ মানুষের জন্য আল-কুরআনের অন্তর্নিহিত ভাব ও মর্ম সহজবোধ্য হয়ে উঠে তাফসীর পাঠ করার মাধ্যমে। এজন্য ইসলামের প্রথম থেকে কুরআন ও হাদীসের বিশেষজ্ঞ ‘আলিমগণ সাধারণ মানুষের জন্য সহজসাধ্য করে রচনা করেছেন তাফসীর গ্রন্থ।

এসব তাফসীর গ্রন্থের মধ্যে পবিত্র কুরআনের প্রখ্যাত ভাষ্যকার আল্লামা আবূ জা’ফর মুহাম্মদ ইবন জারীর তাবারী (র) প্রণীত তাফসীরে তাবারী অন্যতম। এই তাফসীরখানা তাফসীরে তাবারী নাম সমধিক পরিচিত হলেও এর প্রকৃত নাম “জামিউল বায়ান ফী তাফসীরিল কুরআন”। পবিত্র কুরআনের সঠিক ব্যাখ্যায় এই তাফসীরে সর্বাধিক হাদীস বর্ণিত হয়েছে। এটি মূলত হাদীস ভিত্তিক তাফসীর। এজন্য এ গ্রন্থখানি মুসলিম জাহানে বিশেষভাবে সমাদৃত।

তত্ত্ব ও তথ্যের বিশুদ্ধতার জন্য পাশ্চাত্য জগতের পন্ডিত-গবেষকগণও এ তাফসীরখানার প্রতি বিশেষভাবে আকৃষ্ট হয়েছেন। ১৯৮৮ সালে অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটি প্রেস তাফসীরটির প্রথম খন্ডের ইংরেজী অনুবাদ প্রকাশ করেছে। আল্লাহ তাআলার অপার অনুগ্রহে ইসলামিক ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ ১-১২খন্ড বাংলায় অনুবাদ প্রকাশ করেছে। ইতিপূর্বে  অন্য সাইটে ১-৭খন্ড স্ক্যানকৃত কপি প্রকাশ হয়েছে। বাকী খন্ডগুলো আমরা প্রকাশ করার আশা রাখি। (more…)

More

জিহাদ ও জঙ্গীবাদ প্রেক্ষিত বাংলাদেশ

বর্তমান বিশ্বের সবচেয়ে আলোচিত ও স্পর্শকাতর বিষয় হল সন্ত্রাস। বিশেষ করে বাংলাদেশেও এই প্রসঙ্গ বর্তমানে হট কেক হিসেবে আলোচিত হচ্ছে। বর্তমানে সহীহ আক্বীদার ও আমলের অনুসারীদের এক প্রকার জুলুম করে অন্যায় অভিযোগ চাপিয়ে দিয়ে অন্যায় অত্যাচার করা হচ্ছে। চরমপন্থার অভিযোগ করে সহীহ আক্বীদার দাওয়াতী কার্যক্রমকে থামিয়ে দেয়অর চেষ্টা করছে। অথচ সহীহ আক্বীদা ও আমলের অনুসারীরা সকল প্রকার চরমপন্থার বিরোধী সেইসাথে একটি শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বা দেশে অশান্ত পরিবেশ সৃষ্টি সহীহ আক্বীদা ও আমলের পরিচয় বহন করে না। চিরশান্তির ধর্মকে সন্ত্রাসী ধর্ম হিসেব আখ্যায়িত করার ষড়যন্ত্র হিসেবে এসব করানো হচ্ছে। এর আগেও বিভিন্ন দাওয়াতী এনজিওর কার্যক্রমকেও ভূয়া জঙ্গীবাদের ধূয়া তুলে বন্ধ করার চেষ্টা করা হয়েছে।

ধর্মের নামে এক শ্রেণীর অশিক্ষিত, অর্ধশিক্ষিত, মূর্খ লোকেরা মুসলিমদের চিরশত্রুদের পাতানো ফাঁদে পা দিয়ে একদিকে যেমন আমাদের দেশকে বিতর্কিত করার অপপ্রয়াস চলছে, সেই সাথে আমাদের চিরশান্তির ধর্ম ইসলামকেও কলঙ্কিত করার চেষ্টা করছে। একথা সর্বজনবিদিত যে, ইসলাম কোন অবস্থাতেই জঙ্গীবাদকে সমর্থন করে না। (more…)

More

রাসূল (সা)-এর ২৪ ঘন্টা

ইসলাম অন্যান্য প্রচলিত ধর্মের ন্যায় কেবল কতিপয় কর্মকান্ডের সমাহারের নামই নয়। এটি একটি পূর্ণাঙ্গ ও ভারসাম্যপূর্ণ জীবন ব্যবস্থার নাম। একজন ব্যক্তি ফজরের সালাতের জন্য সুবহে সাদিকের পর ঘুম থেকে উঠা এবং দিন অতিবাহিত হতে হতে সন্ধ্যা হয়ে প্রয়োজনীয় কাজকর্ম সম্পন্ন করার মাধ্যমে রাত্রিযাপন করে। আবার সুবহে সাদিক পর্যন্ত এই যে ২৪ঘন্টা সময় আছে তাতে জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রেই ইসলামের বিধান বিদ্যমান আছে। আমাদের অনেকের ইসলাম সম্পর্কে ভালো জ্ঞান না থাকা, সামাজিকভাবে ইসলাম বিদ্বেষীভাব, রাষ্ট্রীয়ভাবে ইসলামের প্রতি বৈরিতা প্রদর্শনসহ বিবিধ কারণে ইসলামকে অন্যান্য ধর্মের ন্যায় মনে করার মাধ্যমে ইসলাম থেকে অনেক দূরে অবস্থান করেছেন।

রাসূল (সা)-এর জীবনে রয়েছে আমাদের জন্য চলার পথে পাথেয়। তার জীবনের সম্পূর্ণ দিকই সুন্নাহ। আবার তাঁর চরিত্রই কুরআন। অর্থ্যঅত কুরআনের পূর্ণাঙ্গ প্রতিফলন রাসূল (সা)-এর চরিত্র। রাসূল (সা) এর সামগ্রিক জীবন তথা পূর্ণাঙ্গ ২৪ ঘন্টা সম্পর্কে আমাদের জানা বাঞ্জনীয়। এই জীবনই অনুসরণ করার মাধ্যমে আমরা দুনিয়া ও আখিরাতে কল্যাণ লাভ করতে পারে। রাসূল (সা)-এর পূর্ণাঙ্গ জীবন সম্পর্কে ধারণা দিতেই পিস পাবলিকেশন্স, বাংলাদেশ পরিবেশন করছে “রাসূল (সা)-এর ২৪ ঘন্টা”। (more…)

More

আল-বিদায়া ওয়ান নিহায়া সম্পূর্ণ ডাউনলোড

“আল-বিদায়া ওয়ান নিহায়া” প্রখ্যাত মুফাসসির ও ইতিহাসবেত্তা আল্লামা ইবনে কাসীর (রহ) প্রণীত একটি সুবৃহৎ ইতিহাস গ্রন্থ। এই গ্রন্থের সৃষ্টির শুরু তথা আরশ, কুরসী, নভোমন্ডল, ভূমন্ডল প্রভৃতি এবং সৃষ্টির শেষ তথা হাশর-নশর, কিয়ামত, জান্নাত, জাহান্নাম প্রভৃতি সম্বন্ধে আলোচনা করা হয়েছে।

এই গ্রন্থটি ১৪টি খন্ডে সমাপ্ত হয়েছে। আল্লামা ইবনে কাসীর (র) তাঁর এই গ্রন্থকে তিনভাগে ভাগ করেছেন।

প্রথম ভাগ: আরশ, কুরসী, ভুমন্ডল, নভোমন্ডল এতদুভয়ের অন্তর্বতী সব কিচু তথা ফেরেশতা, জিন, শয়তান, আদম (আ)-এর সৃষ্টি, যুগে যুগে আবির্ভূত নবী-রাসুলগণের ঘটনা, বনী ইসরাঈল, ইসলাম-পূর্ব যুগের রচনাবলী এবং মুহাম্মাদ (সা)-এর জীবন-চরিত আলোচনা করা হয়েছে।

দ্বিতীয় ভাগ : রাসুল (সা)-এর ওফাতকাল থেকে ৭৬৮ হিজরী সাল পর্যন্ত সুদীর্ঘ কালের বিভিন্ন ঘটনা এবং মনীষীদের জীবনী আলোচনা করা হয়েছে।

তৃতীয়ভাগ : ফিতনা-ফাসাদ, যুদ্ধ-বিগ্রহ, কিয়ামতের আলামত, নাশর-নশর, জান্নাত-জাহান্নামের বিবরণ ইত্যাদি।

লেখক তাঁর এই গ্রন্থের প্রতিটি আলোচনা কুরআন, হাদীস, সাহাবাগণের বর্ণনা, তাবেঈন ও অন্যান্য মনীষীদের দ্বারা সমৃদ্ধ করেছেন। ইবনে হাজার আসাকালানী (রহ), ইবনুল ইমাদ আল-হাম্বলী (র) প্রমুখ ইতিহাসবিদ এই গ্রন্থের প্রশংসা করেছেন। বদরুদ্দীন আইনী হানাফী (র) এবং ইবনে হাজার আসকালানী (রহ) গ্রন্থটির সার-সংক্ষেপ রচনা করেছেন। (more…)

More

আল-বিদায়া ওয়ান নিহায়া ১০ম খন্ড

“আল-বিদায়া ওয়ান নিহায়া” প্রখ্যাত মুফাসসির ও ইতিহাসবেত্তা আল্লামা ইবনে কাসীর (রহ) প্রণীত একটি সুবৃহৎ ইতিহাস গ্রন্থ। এই গ্রন্থের সৃষ্টির শুরু তথা আরশ, কুরসী, নভোমন্ডল, ভূমন্ডল প্রভৃতি এবং সৃষ্টির শেষ তথা হাশর-নশর, কিয়ামত, জান্নাত, জাহান্নাম প্রভৃতি সম্বন্ধে আলোচনা করা হয়েছে।

এই গ্রন্থটি ১৪টি খন্ডে সমাপ্ত হয়েছে। আল্লামা ইবনে কাসীর (র) তাঁর এই গ্রন্থকে তিনভাগে ভাগ করেছেন।

প্রথম ভা: আরশ, কুরসী, ভুমন্ডল, নভোমন্ডল এতদুভয়ের অন্তর্বতী সব কিচু তথা ফেরেশতা, জিন, শয়তান, আদম (আ)-এর সৃষ্টি, যুগে যুগে আবির্ভূত নবী-রাসুলগণের ঘটনা, বনী ইসরাঈল, ইসলাম-পূর্ব যুগের রচনাবলী এবং মুহাম্মাদ (সা)-এর জীবন-চরিত আলোচনা করা হয়েছে।

দ্বিতীয় ভাগ : রাসুল (সা)-এর ওফাতকাল থেকে ৭৬৮ হিজরী সাল পর্যন্ত সুদীর্ঘ কালের বিভিন্ন ঘটনা এবং মনীষীদের জীবনী আলোচনা করা হয়েছে।

তৃতীয়ভাগ : ফিতনা-ফাসাদ, যুদ্ধ-বিগ্রহ, কিয়ামতের আলামত, নাশর-নশর, জান্নাত-জাহান্নামের বিবরণ ইত্যাদি।

লেখক তাঁর এই গ্রন্থের প্রতিটি আলোচনা কুরআন, হাদীস, সাহাবাগণের বর্ণনা, তাবেঈন ও অন্যান্য মনীষীদের দ্বারা সমৃদ্ধ করেছেন। ইবনে হাজার আসাকালানী (রহ), ইবনুল ইমাদ আল-হাম্বলী (র) প্রমুখ ইতিহাসবিদ এই গ্রন্থের প্রশংসা করেছেন। বদরুদ্দীন আইনী হানাফী (র) এবং ইবনে হাজার আসকালানী (রহ) গ্রন্থটির সার-সংক্ষেপ রচনা করেছেন। (more…)

More

আল-বিদায়া ওয়ান নিহায়া ৮ম খন্ড

“আল-বিদায়া ওয়ান নিহায়া” প্রখ্যাত মুফাসসির ও ইতিহাসবেত্তা আল্লামা ইবনে কাসীর (রহ) প্রণীত একটি সুবৃহৎ ইতিহাস গ্রন্থ। এই গ্রন্থের সৃষ্টির শুরু তথা আরশ, কুরসী, নভোমন্ডল, ভূমন্ডল প্রভৃতি এবং সৃষ্টির শেষ তথা হাশর-নশর, কিয়ামত, জান্নাত, জাহান্নাম প্রভৃতি সম্বন্ধে আলোচনা করা হয়েছে।

এই গ্রন্থটি ১৪টি খন্ডে সমাপ্ত হয়েছে। আল্লামা ইবনে কাসীর (র) তাঁর এই গ্রন্থকে তিনভাগে ভাগ করেছেন।

প্রথম ভা: আরশ, কুরসী, ভুমন্ডল, নভোমন্ডল এতদুভয়ের অন্তর্বতী সব কিচু তথা ফেরেশতা, জিন, শয়তান, আদম (আ)-এর সৃষ্টি, যুগে যুগে আবির্ভূত নবী-রাসুলগণের ঘটনা, বনী ইসরাঈল, ইসলাম-পূর্ব যুগের রচনাবলী এবং মুহাম্মাদ (সা)-এর জীবন-চরিত আলোচনা করা হয়েছে।

দ্বিতীয় ভাগ : রাসুল (সা)-এর ওফাতকাল থেকে ৭৬৮ হিজরী সাল পর্যন্ত সুদীর্ঘ কালের বিভিন্ন ঘটনা এবং মনীষীদের জীবনী আলোচনা করা হয়েছে।

তৃতীয়ভাগ : ফিতনা-ফাসাদ, যুদ্ধ-বিগ্রহ, কিয়ামতের আলামত, নাশর-নশর, জান্নাত-জাহান্নামের বিবরণ ইত্যাদি।

লেখক তাঁর এই গ্রন্থের প্রতিটি আলোচনা কুরআন, হাদীস, সাহাবাগণের বর্ণনা, তাবেঈন ও অন্যান্য মনীষীদের দ্বারা সমৃদ্ধ করেছেন। ইবনে হাজার আসাকালানী (রহ), ইবনুল ইমাদ আল-হাম্বলী (র) প্রমুখ ইতিহাসবিদ এই গ্রন্থের প্রশংসা করেছেন। বদরুদ্দীন আইনী হানাফী (র) এবং ইবনে হাজার আসকালানী (রহ) গ্রন্থটির সার-সংক্ষেপ রচনা করেছেন। (more…)

More